গরমে ছেলেদের চুলের কাট

0
10
hair

কাজে-অকাজে দিনের বেশিরভাগ সময়ই বাসার বাইরে থাকতে হয়। দিনভর গরমে বাড়তি এক ভোগান্তির নাম ধুলোময় বাতাস। চোখ, মুখ আর চুল ভরে যায় ময়লাতে। এদিকে মাথাভর্তি চুলের কারণে ময়লার সঙ্গে জমে ঘাম। একসময় দেখা দেয় মাথাব্যথা, খুশকি, চুলপড়া, চুল রুক্ষ্ম হয়ে যাওয়ার মতো সমস্যা। এসব ঝামেলা এড়াতে গরমের দিনে চাই চুলের আরামদায়ক কাট।

গরমে ছেলেদের চুল কিছুটা ছোট রাখাই ভালো। চুল ছোট করে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন অনেকেই। ছোট চুলের উপকারিতা বলতে গেলে মাথায় বাতাস লাগা, গরমে ঘাম না জমা, চুলে ময়লা কম হওয়াকে বোঝায়। তাই ফ্যাশনের সঙ্গে আনতে পারেন চুলের কাটের ভিন্নতা। আসুন জেনে নেয়া যাক, গরমে ছেলেদের আরামদায়ক কিছু চুলের কাট সম্পর্কে।

গরমে ছেলেদের চুলের কাট
ফেড কাট

চুলের দৈর্ঘ্য সবচেয়ে কম রেখে যে কাট দেওয়া হয় সেটিই ফেড কাট। এই স্টাইলের চুলের কাটে মাথার পেছনে এবং কানের ওপরে চুল প্রায় থাকে না। কানের ১ ইঞ্চি ওপর থেকে চুল বড় হওয়া শুরু করে। অপরদিকে মাথার পেছনে ওপরের অর্ধেক থেকে চুল হালকা বড় হতে থাকে। যারা অনেক বেশি ক্যাজুয়াল তাদের জন্য এ হেয়ার স্টাইল মানানসই।

হোয়াইট ওয়ালস কাট

এই হেয়ার স্টাইলে কানের ওপরের চুল ছোট করে কাটা থাকে। মাথার পেছনের চুলগুলো লেয়ারের মতো করে বের হয়ে আসে। যাদের মাথা লম্বা আকৃতির তাদের জন্য এটি উপযুক্ত।

কায়েজার কাটজুলিয়াস কায়েজারের নামানুসারে এ হেয়ার স্টাইলের নাম রাখা হয়েছে। এই স্টাইলের চুলের কাটে মাথার ওপরের চুলগুলো ১ থেকে ২ ইঞ্চি পর্যন্ত লেয়ার করা থাকে, সামনের দিকের চুলগুলো কপালের ওপর ফেলে রাখা হয়, যা আপনাকে দেবে স্টাইলিশ লুক।

ব্রাশ কাট

ব্রাশ কাট করতে চাইলে আপনাকে কানের ওপরের চুলগুলোকে একদম ছোট করে কাটতে হবে। মাথার ওপরের চুলগুলোর দৈর্ঘ্য সমান করতে হবে।

বোর কাট

এই হেয়ার স্টাইল করতে চুল ক্লিপার দিয়ে কাটতে হবে। এ ক্ষেত্রে চুলের দৈর্ঘ্য হবে ১ ইঞ্চির ৮ ভাগের এক ভাগ। এ স্টাইলে পুরো মাথার চুল সমান থাকবে, যা দেখতে অনেকটা কদম ফুলের মতো। যাদের মাথা একটু বড় এবং চুল অনেক ঘন ও মোটা তাদের জন্য এটি উপযুক্ত।

লেয়ার স্পাইক

লেয়ার স্পাইক স্টাইলে চুল কাটতে হলে কপালের ওপরের চুল ছোট করে স্পাইক করতে হবে। মাথার ওপরের দিকের চুল তুলনামূলক বড় হবে। কিন্তু পেছনের দিকে লেয়ার কাট হবে।

ত্রুক্র কাট

ছোট চুলের স্টাইলের মধ্যে ত্রুক্র কাট বেশ কিছুদিন থেকে জনপ্রিয়। ত্রুক্র কাটের মধ্যে অনেক বৈচিত্র্য আছে, যা চেহারার গড়নের ওপর নির্ভর করে বাছাই করা উচিত। এ স্টাইলে মাথার পেছনের এবং পাশের চুল খুব ছোট করে কাটা হয়। কিন্তু ওপরের চুলগুলো ক্রমেই কিছুটা বড় ও খাড়া করে রাখা হয়। এ ত্রুক্র কাট দুই ধরনের হয়- এক্সট্রা শর্ট এবং হাই অ্যান্ড টাইট।

ক্ল্যাসিক কাট

সব সময়ের সঙ্গে মানানসই ক্ল্যাসিক কাট। মুখমণ্ডলেএবং মাথার আকৃতি বিবেচনা করে এ হেয়ার স্টাইল নেওয়া হয়। এ স্টাইলে মাথার একপাশে সিঁথি করে চুল আঁচড়ানো থাকে, এটি এখন পর্যন্ত বেস্ট ফরমাল হেয়ার স্টাইল হিসেবে জনপ্রিয়।

স্পাইক হেয়ার স্টাইল

এ হেয়ার স্টাইল টিনএজারদের অনেক প্রিয় একটি স্টাইল। এ স্টাইলে মাথার সামনের চুলগুলো ক্রমেই ছোট থেকে বড় হয়ে স্পাইক হয়।